স্মৃতি-3

Posted: August 28, 2017 in Uncategorized

68809_391111364309677_1676834663_n178950_10150841100532133_302832398_n282023_389794284441385_1395989288_n533337_111028415759606_920441196_n947329_759378844192878_711680501015496419_n988793_561848123902666_1216527743_n1011254_476811252423958_1187436451_n1014099_476811239090626_2088087296_n1016451_644227208973343_2042444546_n1375054_651483518203917_1364731164_n1376352_664045030281099_864228649_n1461022_551455854941893_741447672_n1486683_555035744583904_1645902898_n1509686_476811109090639_847533562_n1517457_714684865237256_6184749193994884754_n1517478_566296183457860_500292500_n1535669_566297453457733_1372899951_n1544617_759379424192820_8706281134907948053_n1601007_585538518200293_281564771_n1601061_579644478789697_789220475_n1619640_476810955757321_2072402756_n1620669_476811005757316_456489400_n1621702_476809609090789_240551970_n1622675_476808609090889_681190286_n1656290_476808389090911_824178988_n1661628_476811002423983_2064118932_n1780776_476809589090791_1378376803_n1780889_589100224510789_1929978531_n1797586_476809545757462_1737711886_n1898139_611394398948038_1867981201_n1898143_476809215757495_1727972639_n1898147_476808375757579_1296334650_n1901224_476809385757478_992428070_n1901978_476808745757542_1350010620_n1911629_476810612424022_1174585015_n1920203_476811152423968_1373213912_n1922051_476810902423993_731598786_n1924594_476809439090806_866219149_n1926775_476808615757555_1270540821_n1926820_476810445757372_384235472_n1932349_476809309090819_1039449404_n1958133_622926091128202_5842442768534690292_n1970752_476811125757304_1400124447_n10294451_639239849496826_8121668049696108415_n10352769_1515098225384837_3306704570325135802_n-300x22510406516_988740467828437_7804828611985320685_n10406751_989194267783057_1235044526451125560_n10418319_689912377762906_7200698145827401433_n10478204_825388057548670_3300321454716002929_n10649837_711996588887818_3970648727900683116_n10728913_730070480413762_1912382927_n10904330_769498923137584_786029498_n10960294_1559596224296278_6449477357463076837_o11004049_795031573917652_1588012306_n11214123_956591954404717_190142346044335789_n11403471_855134934573982_7525363753433862109_n11800039_875261632561312_4157927227743524724_n11813323_803996339699598_3365801669957344959_n11928750_1023928574292741_960829545544829701_n11988260_994259257278615_3091919347987059128_n12654329_990330977669386_8867413121337432643_n12662728_759379897526106_5331517534245815814_n12669470_992363387466145_532719101197100476_n12669599_1027488810644810_5196668286652886190_n12670062_759379234192839_7640541194097400778_n12670209_759379157526180_2952289389672795563_n12715474_759379434192819_3862891368368713180_n12717689_759378900859539_5545190672205606833_n12717918_759379024192860_3020145102232169908_n12734222_759379004192862_651634597356716264_n12743720_759378847526211_8064301981017084883_n12744484_759379080859521_1920563914962168889_n12745991_911743942280223_5294566457247558174_n12832575_1045091868888311_4435417495514860694_n13305137_1695633964030633_4205305947463630172_o13600078_10154348860369421_689849967080387244_n13606925_491385237726733_6001705288749147018_n13645104_683790051772588_8492300924111824935_n13680663_683790591772534_6464137793110090790_n13681028_1759509987635841_5463056444020180142_n13681030_1084191055001701_4194601181895228204_n13686689_1141501132563321_552629925786739017_n13872703_860395004065579_7041836707933763306_n (1)13872703_860395004065579_7041836707933763306_n13872735_2529679427050644_1064982704685767743_n13873082_2529679793717274_1609293478910170058_n13876292_2529679873717266_186476033176986004_n13876435_1759509997635840_1618640857890798211_n13880123_2529679697050617_1212810409156238788_n13880349_683790568439203_7885710521255520727_n13882438_10210176394275526_3321613364556571682_n13882626_10154316442758326_6747646103096540464_n13891808_683790655105861_3095765857301464944_n13892390_683790621772531_6229960767209711318_n13895103_1091096614304301_7663215230910507939_n13895143_1759509970969176_4239234258569344841_n13895289_2529679467050640_6575550230314976300_n13895305_10154316442268326_5477886319100038271_n13895436_1759510027635837_2906393602479028119_n13895577_275659092805536_8669122627470366861_n13900195_1091096584304304_4997298116526123712_n13900235_1764153110492130_2171653668706745641_n13900252_10208709825596283_1479863916516378494_n13900291_1759510010969172_7850944305215368679_n13901316_1234593933226481_4477983622585919856_n13901488_1155033101224988_1597719245820735755_n.jpg13902737_2529679397050647_8046313581671234468_n.jpg13903434_1142203352468911_6669050517678693519_n.jpg13907030_1091096670970962_2212525001289826064_n.jpg13912313_1091096857637610_3540359287311819105_n.jpg13912572_1091096557637640_790973607499462447_n.jpg13912624_1091097107637585_5036928139159987574_n.jpg13912916_2529679610383959_3260669064175606485_n.jpg13920410_860394990732247_5442800900370751115_o.jpg13920696_10210176397675611_678136615976845873_n.jpg13920719_1237882032921189_6451025700685006822_n.jpg13920720_1091097467637549_2674479530741912275_n.jpg13920811_1091096787637617_5811860991088436787_n.jpg13924806_1091096877637608_4589636800680744105_n.jpg13924952_1091097164304246_7747080254590401435_n.jpg13925037_1091097020970927_8826845657391677258_n.jpg13925061_2529679523717301_2097634061269445468_n.jpg13925100_1091097397637556_5370716215433460380_n.jpg13925108_1091097370970892_2076869656976665904_n.jpg13925179_297690280583959_7086022141838253073_n.jpg13925408_1091096500970979_5586256828379640656_n.jpg13932899_1091097350970894_7947346467319482500_n.jpg13932948_10205016614575068_6849097241657254722_n.jpg13962566_1759160637706605_7629991478421141364_n.jpg13962602_1091096517637644_2957495652466760775_n.jpg13962707_1091097200970909_2692500297173365667_n.jpg14021492_1091096640970965_3710568936688813820_n.jpg14021686_1563937847247247_8738166639798886226_n.jpg14034757_1091096994304263_5013907248885894519_n.jpg14034925_1091096694304293_302048459075233369_n.jpg14045786_10201878432999455_4870165372208392046_n.jpg14045904_1091096717637624_6572827186568081978_n.jpg14046003_10210277409480843_2509133033889706541_n.jpg14046045_1091097260970903_8008613699630606335_n.jpg14046162_1091097070970922_3447669154356205918_n.jpg14051715_1263381620369506_31294109335597032_n.jpg14051734_1091097130970916_3776340461001690156_n.jpg14054899_1091097044304258_1930236702683277531_n.jpg14055187_1091097310970898_7244375074395210061_n.jpg14055190_1040202989412439_748086215108205519_n.jpg14063992_1091097437637552_4390086146934528340_n.jpg14063998_1267607009940372_6187256866845928858_n.jpg14064126_1091097234304239_1848013931982484385_n.jpg14067601_1091096910970938_4197100541055724368_n.jpg14067650_1091096747637621_5466280754660452983_n.jpg14068140_1084182165034430_1898766571257714062_n.jpg14080025_1563937937247238_3503273180277630357_n.jpg14088406_10209141902599160_3296956279906809141_n.jpg14089299_1034617916657235_4833587998144612241_n.jpg14095742_10207137902110544_2815476262591205900_n.jpg14095826_10209141894158949_6948200312186776625_n.jpg14100467_1103532533062653_8121256336175604270_n.jpg14100482_1082481311827708_1486402016726370401_n.jpg14102496_1082481398494366_4292093149510225727_n.jpg14102608_1164062760307158_3260938507659954181_n.jpg14117688_1085937828156452_5537561074250745465_n.jpg14117925_1082480941827745_8360210801215158497_n.jpg14141495_10209141893318928_7274349316069148315_n.jpg14141540_10209141903799190_899177317638011004_n.jpg14142045_1745554915693107_6357273346526887904_n.jpg14183790_316203378731470_2850109235711590523_n.jpg14183949_10209141894078947_8674107390208502637_n.jpg14192084_282249445489667_5039215987099554590_n.jpg14199151_10208588478322038_3845517441549889638_n.jpg14199319_332927877049909_5869734984166742764_n.jpg14202499_10210573510472199_3391795949986794774_n.jpg14202699_1195674623804453_253193533932072816_n.jpg14203157_10210573499271919_8938122692995668879_n.jpg14222331_282249475489664_6002399746715181169_n.jpg14232399_1787174514874381_446991948841173722_n.jpg14237499_10208853498727612_1511198013413779169_n.jpg14238355_10210573506592102_2223826566669738093_n.jpg14492549_10154489372315900_4040585421548381517_n.jpg14502793_1673850136262591_904437516355206626_n.jpg14519898_1072571589523688_8463456227026922337_n.jpg14522909_1312878285413244_8049887126741354823_n.jpg14523053_10210500419814042_2142856519831322564_n.jpg14563326_1145002032249036_4790706948145284721_n.jpg14590358_678426605653221_2279651892758441948_n.jpg14639628_1092862014166158_8612882276867260856_n.jpg14639684_1233135913414338_4410261503879114437_n.jpg14680611_1275129092538732_4973210749438725448_n.jpg14681890_10211215383599948_5544888006645586565_n.jpg14718726_10207558938116181_3553269223526506627_n.jpg14732113_1176865212378601_3090573283110481625_n.jpg14915511_10210853738881037_8473804387429136474_n-696x522.jpg14915602_10153810825781673_1700297425557433955_n.jpg14937246_10153808221906673_6891775693749182851_n.jpg14947723_10153810825786673_8031693642209664413_n.jpg14947868_10153808212181673_2049366953270638519_n.jpg14955899_10153808213286673_2258163936843953902_n.jpg14956053_10153808493301673_2628616041217473587_n.jpg14963397_10153808213266673_609964889771362901_n.jpg14980691_10153814420871673_2047802370703113242_n.jpg14980848_10153808092521673_6192287017276683790_n.jpg14991810_909640762500018_8884535282467080991_n.jpg14992039_10210269148300857_3323048066334702421_n.jpg14993515_10153808492831673_8811550303218302140_n.jpg14993568_912050318925729_8546365354143773616_n.jpg15027560_1226138864118482_5910167201713117180_n.jpg15027578_10153808212206673_2789078023617647301_n.jpg15032770_132728983870804_3427480586361681165_n.jpg15036274_10211191001000060_377647830152144888_n.jpg15056453_297525707309619_7195811326143565178_n.jpg15078863_10153810825726673_3329897959654294408_n.jpg15078928_1838841152998233_6794946024259832432_n.jpg15079032_1863510103860453_5506722750066074603_n.jpg15085489_185298155264120_6257098400197742259_n.jpg15085505_10210269147780844_855191440083708261_n.jpg15094409_10153814373146673_7171565103277689668_n.jpg15094414_10211229053912686_4043838190125136889_n.jpg15094473_10154072994307742_2888401358511545239_n.jpg15094983_10209182210164963_3465329850481784439_n.jpg15095485_126365744510527_629277493503456119_n.jpg15107389_1004151189713832_4844168224567898544_n.jpg15171016_923472221116872_8268535302860203507_n.jpg15171216_1156712644436475_3110375156095532836_n.jpg15171332_1156712597769813_6798679153887979166_n.jpg15178147_1255343707841846_1631405636265091018_n.jpg15178942_296703877391546_566796599256863716_n.jpg15181251_1156496004458139_2534478637650171300_n.jpg15192600_10153972047102539_528689377656316017_n.jpg15192629_1156627987778274_1405901710559208688_n.jpg15192646_1122088594527615_2547356126800737465_n.jpg15192664_1859688294260416_3798526545931002586_n.jpg15192762_1156712544436485_9031779350287694346_n.jpg15193434_1028769423916199_3774829122704223175_n.jpg15193568_934039626696255_4352726415547835191_n.jpg15193603_1028915183901623_6100053471005514255_n.jpg15219565_1286275641423136_2435424117770824144_n.jpg15219596_1031119703681171_7538368012460597325_n.jpg15219608_934040276696190_3287362192878624009_n.jpg15219627_934039710029580_1106272876137193723_n.jpg15232073_345513109137289_3527978538867990508_n.jpg15232082_10208871514478961_4367332730554566150_n.jpg15267574_1842880145959556_46124801134422891_n.jpg15317812_10209711039485909_6824056994398863213_n.jpg15317972_1881823508720169_7970371595366572302_n.jpg15326540_10154127739542742_8015591249260845346_n.jpg15350524_10153988567442539_7589313555356167591_n.jpg15355767_1187869927917582_6542886333352716248_n.jpg15380363_610424179160095_1054976706325586124_n.jpg15380517_1335336186510638_8913907818896972268_n.jpg15380664_10209346769598846_7224012329034556247_n.jpg15400325_10207475414431760_4695608660626766538_n.jpg15420838_1000347830112070_2241498323182218111_n.jpg15420920_1386258701408535_2202993975728958797_n.jpg15439945_1000347853445401_2485486316475944176_n.jpg15492492_10207986929099971_127236804776804335_n.jpg15589935_10205963106075383_2135886747342896680_n.jpg15665722_993270324112573_4248400399823260916_n.jpg15697787_309415652787035_5181094231025334805_n.jpg15726278_309415679453699_730703774683947736_n.jpg15726425_223867354731026_5846953420008930008_n.jpg15726597_382629468751728_2427134676220467918_n.jpg15726940_309415629453704_4351631768591563133_n.jpg15727047_10211716208405864_7955404003470553639_n.jpg16106032_1244466402255841_2570546531089480988_n.jpg16114510_1320721344654887_3483220481519935466_n.jpg16114873_1306801649385887_3720230198303628533_n.jpg16142253_1306801242719261_5877907016417555991_n.jpg16143024_1306801502719235_6808272605412774582_n.jpg16143366_1306802982719087_4442749973470711424_n.jpg16174712_1306801506052568_4518038684184253858_n.jpg16195130_1306801589385893_7211901809586057795_n.jpg16195346_1306801182719267_6104287429204686318_n.jpg16195566_1306801369385915_1792361221889612725_n.jpg16195592_1306801376052581_7638501999620368182_n.jpg16265200_1306801426052576_5880318866246996426_n.jpg16265416_1306801419385910_6072441183591390214_n.jpg16265808_1326056040788084_6908757017086476396_n.jpg16265838_1306801276052591_4416065152785526164_n.jpg16299045_1370184216380028_3797226118436295400_n.jpg16387244_1366916813373435_7393453193617743287_n.jpg16403288_1351082198288275_8970287250428596641_o.jpg16425849_1370184389713344_5520821347828599529_n.jpg16426184_1370184039713379_8386265804312200884_n.jpg16427399_1370179153047201_6746937358308127949_n.jpg16472824_1373018816096568_95356720008606460_n.jpg16472838_1373016422763474_6581352566619434925_n.jpg16472849_1370182869713496_4321750620893014101_n.jpg16472869_1645416455766789_4941275376509612051_n.jpg16472988_1370181269713656_1585110589168706190_n.jpg16473251_1370179393047177_2714033889239758139_n.jpg16473436_1159399134178550_6451079391398277149_n.jpg16473848_1370178606380589_3976617988236048863_n.jpg16507891_1108732862569262_7615307114338581746_n.jpg16508081_10154252577239327_8216007084776266533_n.jpg16508479_1264997626869385_5921035595838054971_n.jpg16508571_640595809459941_7970481413948032012_n.jpg16508594_1338582542868767_6091606321078985589_n.jpg16508878_1370180146380435_7328939703420115054_n.jpg16508996_1253667414714476_9090134589688522493_n.jpg16602821_934724813330323_6268574769947288452_n.jpg16602854_1917310531838133_3077081121937275684_n.jpg16602989_1704529036505135_4424108475985919827_n.jpg16640587_1917310441838142_8537631826256868613_n.jpg16649103_957927351009108_9134936612604724671_n.jpg16649373_1793528037339399_2027341100720793092_n.jpg16665189_260907031001027_6928319105923532878_o.jpg16681766_809686855836822_5628427319985315651_n.jpg16682009_1286352881403782_1808401686905660830_n.jpg16683986_1917310418504811_7058904746924049999_n.jpg16684203_10202640332486466_1227549368210999692_n.jpg16684377_10212393222173609_4215910051047722599_n.jpg16708522_10212393225413690_4977677551190669567_n.jpg16708742_10154419120446483_7650777161553587085_n.jpg16711505_1376741662390950_440665581017314902_n.jpg16729398_1861162090798805_519771319585459315_n.jpg16730569_1425774107433382_3631469250740522562_n.jpg16807044_1425774160766710_3620898680566618496_n.jpg16831844_1020381404733604_4595489518836830575_n.jpg16831918_1425773707433422_5834219841784345650_n.jpg16864729_10210614805982944_8885320382533004516_n.jpg16864774_1023582774413467_7632902759011620972_n.jpg16864908_1425773717433421_8702125234220617523_n.jpg16864953_1425773860766740_188729768592508712_n.jpg16938442_1023582747746803_1756588532070315960_n.jpg16938453_673247839546295_5271016205720833118_n.jpg16938666_1425774064100053_942029372520946616_n.jpg16938877_1425774094100050_5963662675906013246_n.jpg16938904_10212198850995680_6883057581864240559_n.jpg16939182_1020380731400338_7450447275895310009_n (1).jpg16939182_1020380731400338_7450447275895310009_n.jpg16939373_673251346212611_1930254678906484632_n.jpg16939604_1023583047746773_3491902444807068650_n.jpg16939685_671567126381033_6596547114201771614_n.jpg16995968_1425773710766755_3451728280037415369_n.jpg16996109_1023583107746767_3592400078505687233_n.jpg16996179_1023583227746755_3549901065371599244_n.jpg16997783_671566089714470_8593296132974067446_n.jpg16997894_1425773907433402_1189426451013465213_n.jpg16998206_1023582824413462_7766155528666670999_n.jpg16998719_1023583201080091_686323267208304659_n.jpg16998853_1023582591080152_5004284950005398168_n.jpg16998957_1023582941080117_672738404733398130_n.jpg17021451_1023582604413484_1153376901872930868_n.jpg17021878_673251452879267_2935020942351528694_n.jpg17022332_1023583011080110_2893303871705933274_n.jpg17022418_1023582581080153_1714856088843049746_n.jpg17098195_10154370371972742_4719200535287184448_n.jpg17190913_677098389161240_1179822101882785672_n.jpg17191211_10155065334819913_2023619173545731582_n.png1479531972.jpg30765715073_0d7995b59a_o.jpg090401387125_359325600814430_702943418_n1_1.jpg130723121533_medicine_drug_pharmacy_304x171_mehr_nocredit.jpg224448682039202.jpga7f7ed9063b8c1e0669902933585e3f6-Amitabhtt.jpgAcc PriceAlfred_Nobelbd-700x336Ben+Feringa_s+research+group+built+a+four-wheel+drive+nanocarCBFXBNXCMCCVMMDDFFDGDGSdownloade1reb109db520a2a5da05a84695afe59bfe-IMG_2730ertetfgfgfgxjfhhFinal Dispatch From Coca Cola prompo to arrive bangladesh for details. (1)(1)FJJFlammarionfsggg€g€g€gg€gggggggggggghkgklGOLLACHOThddhhdfhhdhhdhhhdjhhhhhhhiuHJHJHhkhHKIHimagesIMG_7670-640x480inm;lml;IOOIJHHjhkhJJJjjjjJKLHKLJjljJLJHJohirulKABADIKANAkhadijaKKKKKKLKL;KKLKutkutlhLLll;l;'klllkklpNNNNNNNNNNNNooph;Projapoti-Samoresh-Basupuhr2ttana-bristi-3-620x330The Prophet Khalil Jibran (Amarboi.com)Untitled-1uoijholVVYERHygugYRDYURJজাতীয় স্মৃতিসৌধ

Advertisements

Gallery  —  Posted: August 28, 2017 in Uncategorized

জাগো

Posted: August 26, 2017 in Uncategorized

20620748_1499401020106662_2773425425695695342_nহোক না প্রতিবাদ
রাষ্ট্রের কলংকিত অধ্যায় যাক
মুছে যাক;
জন্ম পরিচয়হীন শিশুর ভ্রুণ প্রসফুটিত;
মুক্তি পাক,
হোক না প্রতিবাদ।
2015_06_01_01_14_49

হোক প্রতিবাদ
নারী-শিশুর দেহে কাপুরুষের নগ্ন থাবা
ধারণ করি হৃদয়ে;
শিশু নিষ্পাপ,নারী মা জাতি,সহমর্মিতায়;
জাগুক না বিবেক,
হোক প্রতিবাদ।

হোক না প্রতিবাদ
নিজেকে নিজের লাগে যেমন সাজঁতে ভালো
অন্যের বেলায় বলবো না আর কালো,
আত্মার আত্মীয় সব মানবকে ভাবো;
ভুলে যাও কে বুয়া কে বা আলো;
সকলেই তরে সকলেই সমান
হোক মানষিক পরিবর্তনের প্রতিবা।
Photo_1492450603913

Gallery  —  Posted: August 24, 2017 in Uncategorized

IMG_20140131_174412ছেলেটির বয়স তেমন নয়,মাত্র সাত আট বছর হবে বৈকি।তবে তার চাল চলন স্বভাবে ফুটে উঠে সে যেনো এক পরিপক্ক যুবক।বাজে কোন অভ্যাস নেই তার সে কেবল একটু বেশী চঞ্চল আর অদম্য ইচ্ছে শক্তি আছে যা অজানাকে জানতে অদেখাকে দেখতে নিজের অববয়কে হারিয়ে ফেলে।সে দিনও পিতার হাতটি ধরে ঘুড়তে বেরিয়েছিলো শীতলক্ষ্যার নদীর ধারে।শীত কালে সাধারণ নদী মরা থাকে।জোয়ারে কিছুটা জল বেড়ে গেলেও তা ভাটায় আগের অবস্থায় রূপ নেয়।সে দিন পিতা পুত্র হাটছিলেন ভাটা নদীর পাড় ধরে হঠাৎ তার প্রশ্নের জোয়ার আসে মনে।হাটতে যাওয়ার সময় পায়ে মাড়িয়ে যাওয়া দূর্বা ঘাসের দিকে নজর পড়ল তার।দূর্বা ঘাস গুলো কোথা স্থানে আছে আবার কোন স্থানে নেই এই নিয়ে গতকাল রাতে টিভি দেখার সুত্র ধরে পিতার সাথে তর্কে মেতে উঠে সে।
-আব্বু…
আনমনা চলন্ত আব্বু তার কথার যেন শুনতে পাচ্ছে না।হঠাৎই পুত্র পিতার হাতটি ধরে টান দিয়ে তার কথা বলার প্রতি মনোযোগে ইঙ্গিত দিলো।
-ও আব্বু আব্বু
-জি আব্বু…বলো।
-না,তুমি আগে দাড়াও
-আচ্ছা এই নাও দাড়ালাম এবার বলো কি বলবে?
-বলছি কি এই যে দুর্বা ঘাস নদীর ধারে এত্তো এত্তো অথচ গতকাল টিভিতে দেখলাম বিদেশে কত সুন্দর সুন্দর দেখালো।
-বিদেশেরটি ওরা নিজেরা টাকা খরচ করে অন্য দেশ হতে ক্রয় করে বপণ করেন আর আমাদের এ দূর্বাগুলো আল্লাহর দান…কোন খরচ নাই বুঝলে…।এবার হাটো।
-ওরা কেনো এ ঘাস কিনে?
-কারন ওদের মাটিতে আমার দেশের মাটির মতো এমনি এমনি কোন বৃক্ষ বা গাছ গাছালি হয় না।
-তাহলে তো আমার দেশের মাটি অনেক ভালো মাটি।
-কেনো নয়, সে দিন না একটা গান শুনলে, “সোনা সোনা সোনা সোনা নয়তো খাটি তার চেয়ে খাটি যে ভাই আমার বাংলাদেশের মাটি”
-তাহলে তো আমরা অনেক ধনবান হতে পারি এ সব রপ্তানি করে,
-হ পারিতো,কি ভাবে?(এখানেই কবি নীরব)
কিছুটা পথ হাটার পর আবারো হাত ধরে টান।
-আচ্ছা আব্বু এই যে এ নদী দেখছি এটা হলো কি করে এতো জল আসে কই থেকে?
-পুরোপুরি বলতে পারবো না তবে প্রবল স্রোতে নদী নালার সৃষ্টি হয়।
-স্রোত কি?
-স্রোত হলো জলের গতিবেগ….দূর পাহাড়ে জমে থাকা বৃষ্টির জলের ধারায় এক একটি নদী বা খাল সৃষ্টি হয়।আর একটা কথা “তিন ভাগ জল আর এক ভাগ স্থল নিয়েই পৃথিবী সুতরাং বুঝতেই পারছো নদী নালাগুলো আল্লাহ সৃষ্টি।
পিতার উত্তর যেনো ছেলের কাছে মনোপুত হলো না তবুও সীমিত জ্ঞান বলে সে আপাতত মেনে নিল।একটা দীর্ঘসাস ছেড়ে পিতার হাতটি ধরে হাটতে থাকলো।কিছু দূর যেতেই ছোট্ট একটি টং দোকান দেখে আব্বুর কাছে বায়ণা ধরল তাকে কি জোস যেনো কিনে দিতে হবে পিতার অনেক বারণ করার পরও সে শুনলো না জোস তাকে কিনেই দিতে হবে।বাধ্য হয়ে দোকানে গিয়ে একটি ম্যাঙ্গো জোস কিনে দিলো তাকে।সে জোসটির মুখ্খাটি খুলে একটু মুখে দিয়েই তা আবার বমির মতো বাহিরে ফেলে দিলো।পিতা তখন তার জোসটি হাতে নিয়ে জানতে চাইলো কেনো সে জোসটি পান করল না।
-কি ব্যাপার আব্বু কি হইছে তুমি জোসটি খাচ্ছো না কেনো?
-কেমন যেনো গন্ধ লাগছে আব্বু।
-কেনো আমের ঘ্রাণ তো আসবেই,
-না আব্বু আমের ঘ্রাণ এলেতো খেতামই,পচা গন্ধ….দেখোতো এক্সপ্যায়ার ডেট আছে কি না।
-আমিতো সে জন্য বলছিলাম তুমি এ সব জোস খেয়ো না…..না খাবোই এবার হলতো খামোখা কয়েকটি টাকার অপচয়।আরে এ সব জোস তৈরীতে কোন তাজা ফলের রস নেই …ক্যামিকেল দিয়ে এ সব তৈরী হয় আর মান দেখার মানি লোকইতো এ দেশে নেই।বুঝলে এবার।
-জি আব্বু আর খাবো না….তবে টিভিতে যে বিজ্ঞাপন দেয় তা কি আসল?
-এতো কথা বলতে পারবো,যা বলি তাই শুনবে,ঠিক আছে?
-ঠিক আছে।

আবারো পিতার হাতটি ধরে হাটা।কিছু দূর যাবার পর পিতা তার বেশ কয়েক জন পুরনো বন্ধুর দেখা পেলেন।হাটা থামিয়ে তাদের সাথে কোশলাদি জিজ্ঞাসা করল এক পর্যায় পুরনো বন্ধুদের পেয়ে ছেলেকে বলল এ দিক সে দিক দেখে শুনে ঘুড়তো বলল।ছেলে যেনো এবার বন্দিশালা হতে মুক্ত হলো।ইয়াহু বলে দিলো এক দৌড়।বন্ধুরা সবাই ছেলের প্রশংসায় পঞ্চমুখ।
-আর বলিস না যা দুষ্ট হয়েছে না ও…ঘরে থাকতেই চায় না।আমি ছুটিতে থাকলেই হইছে তাকে নিয়ে বাহিরে ঘুড়তে যেতেই হবে নতুবা কান্না-কাটি করে ঘর অশান্তি করে তুলবে।….যাক সে কথা তোরা কেমন আছস?অনেক দিন পর দেখা।

বিকাল গড়িয়ে সন্ধ্যা,আকাশের উড়ন্ত পাখিগুলো উড়ে যাচ্ছে যার যার নীড়ে।কিছু ক্ষণের মধ্যে হয়তো মাঝি গলা ছেড়ে গাইবে ভাটিয়ালি গান।আকাশঁটা আজ বেশ পরিস্কার ছিলো মাঝে মধ্যে দু একটা মেঘের কুন্ডলী জানান দিয়ে যাচ্ছে এখন শীত কাল কিছু ক্ষণের মধ্যে হবে লোকারণ্যের কোলাহল অস্তিমিত।যদিও বিংশতাব্দি পেরিয়ে গ্রামকে ধ্বংস করে সবাই শহরের রূপ দিতে ব্যাস্ত তথাপি আমাদের শীতলক্ষ্যার নদীর তীরে গাছে গাছে এখনো সন্ধ্যায় পাখিদের কিচিমিচির শব্দ খুজে পাই..দেখি কয়েকটি শুভ্র বকেরা এক পায়ে দাড়িয়ে শিকারী নিশানা তাক করে এক নিষ্ঠ দৃষ্টিতে তাকিয়ে আগত আহারের দিকে,এখনো পাড়ার শখের জেলেরা জাল নিয়ে মাছ শিকারের নেশায় মত্ত, এখনো বৈকালীন আড্ডা জমে শীত কি গ্রীষ্মে।শান্ত শীতল নদীর ঢেউয়ে কোন কালে কোন নজির নেই নদীর পাড় ভাঙ্গার,নেই পদ্মা পাড়ের পাড় ভাঙ্গা মানুষের মতো হা হা কার।যেমন তার নাম তেমনি তার কাম শীতল শীতলক্ষ্যা।

পিতা তার বন্ধুদের নিয়ে আড্ডায় মসগোল ছেলেকে দিলেন ছেড়ে আশ পাশে খেলাধুলা করে আসতে।ছেলেকে সাবধান করে দিলেন দূরে কোথাও যেন না যায়।ছেলে মাথা ঝাকিয়ে সেই যে গেলো আর এলো না।আড্ডার এক পর্যায়ে হঠাৎ ছেলের কথা মনে পড়ল।মুহিন মুহিন বলে চার দিক ডাকা ডাকি শুরু করে খোজঁতে লাগলেন।সন্ধ্যা ঘনিয়ে আসায় সাথের বন্ধুদের অনেকেই বিদায় নিলেন।দুজন বন্ধু তা সাথে ছেলে মুহিনকে খোজছেন।বেচারা পিতা আফজাল হোসেনের একমাত্র সন্তান সে,তার উপর দীর্ঘ কালের বন্ধ্যাত্ব কাটিয়ে এই একটি পুত্র সন্তান পাওয়া যেনো স্রষ্টার কাছ থেকে জোড় করে আনা।বাসা থেকে কর্তীর ফোন আসে বেশ কয়েক বার ফোন রিং বাজার পর টেনসনের মাথায় ফোনটি ধরেন।
-হেলো…
-কি ব্যাপার তুমি কথা বলছো না কেনো?সন্ধ্যা হয়ে এলো তোমরা আসছো না কেনো?
কাপা কাপা কন্ঠে আফজাল সাহেব,স্ত্রী কে শান্তনা দিয়ে ফোন রেখে দিলেন তাতে তার স্ত্রীর সন্দেহ বেড়ে যায়।সে তার মনকে মানাতে পারলেন না তাই সেও ছুটলেন শীতলক্ষ্যার তীরে।
দুষ্টু আর দূরন্তপণা মুহিন বাবাদের আড্ডার সুবাদে একটি বড় ফড়িং ধরার নেশায় পিছু নিল উড়ন্ত ফড়িংয়ের।এক বার সে ধরেই ফেলেছিলো হঠাৎ এক দমকা হাওয়া এসে এতো হাতের এসেও উড়ে গেলো…সেও তার পিছু ছাড়ছে না বলে পণ করল।আবারো তীক্ষ্ণ দৃষ্টি দিয়ে দেখে ফড়িংটি কোথায় বসল,নদীর জলের পাশে এক ছোট্র গাছের ডালে বসা।ফড়িংটি কেমন যেনো ছটফট করে হাত দুটোকে দু’হাতের তালুর ঘর্ষণে ব্রত বেচে থাকার আহার সংগ্রহের আকুতি,চোখোদয়ে ঝল মলের আলো ছড়াচ্ছে হঠাং রাতের নীরবতা ল্যাম্প পোষ্টের বাতিগুলোর আলোক রশ্মি গণ অন্ধকার পরিবেশকে কিছুটা সন্ধ্যা বুঝায়।
চমকে উঠে মুহিন এক অদ্ভুত শব্দের সূর শুনে,যেনো কেউ সাহায্য চাচ্ছে বা কেউ ডাকছে তাকে।ভালো করে করে কনফ্রাম হওয়ার জন্য আবারো সে জলের বালুকা ময় কাদা imagesপেড়ি মাটি গুলোর দিকে তাকায় হঠাৎ হেজাক লাইটের আলোর বিজলির মতো বিজলী মারল মনে হয় ল্যাম্প পোষ্টের লাইটটের একটি আলো কোন এক জীবের চোখের রি -এ্যাকসনস,মুহিন সহজে সহজেই তা বুঝতে পারে…শব্দ করা সূর বলে একটা কুকুর ছানা হয়তো কাদায় আটকা পড়েছে।
একটু কাছে যাবার চেষ্টা মুহিনের,কয়েকটি ধাপ পা ফেলে ফেলে সে এগুতে থাকে,আচমকা সে নিজেও চুরা কাদা বালিতে আটকে গেলো ,যদিও এ কাদার তেমন একটা গভীরতা নেই তথাপি সামনে এগিয়ে যাওয়া দুষ্কর হয়ে পড়ল তার জন্য।মুহিনের সুন্দর জামাটি কাদায় একাকার।কাদা মাখা মুখো বয়ে ফুটে উঠেছে গ্রাম্য ভুত আর কুকুর ছানাটির তো কথাই নেই কখনো এক মুহুর্তের জন্য হলেও স্থির নেই বিকট শব্দ সহ কাদাতে উলোট পালোট খাচ্ছে তা দেখে একই অবস্থার প্রতীক মুহিন খিল খিল করে হাসছে।তার একটু বামেই নদীর পাকা ঘাট সেই ঘাটে অসংখ্য মানুষ গোছল করেন দিনের বেলায় রাতেও দু একজন গোছল করতে ঘাটে আসেন।তেমনি আজও একজন গোছল করতে ঘাটে এলেন।ঘাটে সে ছাড়া অন্য কোন লোকজন নেই।সে যখনি ঘাট দিয়ে নেমে জল স্পর্শ করেন তখনি একটি ভূতুরের মতো শব্দ শুনতে পায়।
ঘাড়টা ঘুড়িয়ে লক্ষ্য করলেন শব্দের উৎপত্তির দিকে।ভয়ার্ত মনে তার চোখের সামনে ভেসে উঠে এক কাদা মাটিতে লেপ্টানো ভুতাকৃতি হাত পায়ের উল্টা উল্টি।ভয়ে ভীতু মন কেদে উঠে চাচা আপনা প্রান বাচা নীতিতে বিশ্বাসী হয়ে দে পাছায় লুঙ্গি তুইল্লা দৌড় দিল।লোকটার ভয়ার্ত চিৎকার শুনে পাশেই মুহিনের আব্বু সহ বন্ধুরা,আর ততক্ষণে মুহিনের মা সহ গ্রামের কিছু হৃদয়ের টানে পাড়া প্রতিবেশীও জড়ো হলেন শীতলক্ষ্যায়।
লোকটি ভয়ে কয়েক বার মাটিতে হামাগুড়ি খেয়ে জড়ো হওয়া বেশ কয়েক জন লোক দেখে সাহস ফিরে পেলেন।সেখানে মুহিনের আব্বুকে নদীর ঘাটে যেতে বাধা দিলেন।
-ও ভাই ভাইও ঐ দিকে ঐ ঘাটের দিকে যাইয়েন না।
-কেন কি হইছে…আর আপনার পড়নে আন্ডার প্যান্ট কেনো লুঙ্গি কোথায়?
-জানি না ভাই লুঙ্গি কই পড়ছে…আমি এ কি দেখলাম।
-কি দেখেছেন?
-ভূত!
-ভূত?
-হ ভূত…নদীর ধারে কাদা প্যাক মাটিতে দু দিকে দুটো ভূত মাটিতে গড়াগড়ি করে খেলা করছে।বাবারে একটুর লাইগ্গা বাইচ্চা গেছি।
-বলেন কি?চলেন তো দেখি কোথায়?
-না না ভাই আমি যাবো না আপনেরা যান….ঐ যে পাকা ঘাট ঐ ঘাটের ডান দিকে….আমি গেলাম।
লফ্ফ দিতে দিতে চলে গেলেন লোকটি।মুহিনের আব্বু লোকটির ভূত ধারণা করার মাঝে সন্দেহ খোজেঁ পেলেন।সে তৎক্ষণাৎ সে দিকে এগুলেন।সেখানে উপস্থিত হয়ে যা দেখলেন তাতে সে রীতিমত অবাক হলেন।
ক্রন্দনরত কুকুর ছানাটিকে কাদামাটিতে পা আটকে থাকা অবশেষে মুক্ত করতে পারলো। মুহিন ক্রন্দনরত কুকুর ছানাটিকে যখনি স্পর্শ করল তখনি পরম স্নেহে কাতর জীবটি নিশ্চুপ হয়ে মুহিনের হাতে লেগে থাকা ময়লাগুলো জিহবা দিয়ে চেটে তা পরিস্কার করে নিজেকে বাচানোর ব্যাক্তিটির প্রতি কৃতজ্ঞতা বোধ প্রকাশ করল।সে কাদামাটি মাখা বাচ্চাটিকে বুকে নিয়ে পাকা ঘাটে বসে জল দিয়ে বাচ্চাটির কাদা মাটিগুলো পরিস্কার করছে।ঠিক সেই সময় মুহিনের আব্বু মুহিন মুহিন বলে ডাকতে ডাকতে পাকা ঘাটের সিড়ি দিয়ে নীচে তার কাছে গেলেন।
তাকে পেয়ে আব্বু যেনো প্রান ফিরে পেলেন।কাদা মাটি মাখানো মুহিনকে আচমকা বুকে টেনে চোখের জল ছেড়ে দিলেন।এরই মধ্যে তার মা সহ বেশ কয়েকজন আত্মীয় স্বজনও ঘাটে ভীড় করলেন।মুহিন যেনো অবাক এতো লোকজন কেনো?কি হয়েছে এখানে!আশ্চর্য হয়ে পিতাকে প্রশ্ন করে।
-কি হয়েছে আব্বু তুমি কাদছো কেনো?আম্মু… তুমিও এসেছো? ভালোই হলো….দাড়াও তোমাকে একটা জিনিস দেখাচ্ছি কিন্তু আমি এটাকে বাসায় নিয়ে যাবো।এই যে এই কুকুর ছানাটি ঐ…ঐ খানে কাদায় আটকে ছিলো।কখন থেকে সে আটকে ছিলো জানি না।আমি যখন ওর কান্নার শব্দ পেলাম তখন তাকে বাচাতে আমিও কাদায় ডেবে গেলাম তখন আমিও চিন্তায় পরলাম….এখন কি হবে আমাকে কে তুলবে এখন।তারপর মনে পড়ল আব্বু যে প্রায় একটি গান শুনতো তা মনে পড়ল”যদি তোর ডাক শুনে কেউ না আসে তবে একলা চলোরে”কাউকে ডেকে যখন পাচ্ছি না তখন একলাই জোড় খাটিয়ে কাদা মাটিতে আটকে থাকা পা তুলে তুলে কুকুর ছানাটিকে উদ্ধার করলাম।আচ্ছা আম্মু আমি যখন কাদায় আটকে ছিলাম তখনতো নদীর জল ছিলো বহু দূরে তা দেখি এক সময় আটকে থাকা আমার পায়ের কাছেও এসে যায় তাইতো মাটি নরম হয়ে যাওয়াতে আমি উঠতে পেরেছি।আচ্ছা নদীর জল বাড়ল কি করে?
মায়ের চোখেও জল বাবার চোখে মুখেতো চিন্তিত ভাব আছেই।প্রশ্নটি করে মায়ের মুখের দিকে তাকিয়ে দেখলো তার চোখ দিয়ে টলটলে জল ঝড়ছে।অবাক মুহিন কিছুই বুঝতে পারছে না,এখানে এতো লোক কেনো!কেনোই বা তার দিকে উৎসুক সবাই তাকিয়ে আছেন।এক প্রকার অপরাধের মতো সে মাকে বলল।
-মা তুমিও দেখছি কাদছোঁ….আমি কি কোন অন্যায় করেছি? ..কি করব বলো কুকুর ছানাটি এমন ভাবে চিৎকার করছিলো,শুনে মন মানলো না।
-ঠিক আছে…বাসায় চলো।
ছেলেকে কোলে তুলে নিল পিতা আফজাল হোসেন।হেটে সিড়ির এক স্টেপসে পা রাখতেই সেই কুকুর ছানার চিৎকার শুনে মুহিন বাবার কোল হতে নেমে দৌড়ে কুকুর ছানাটিকে আদর করছে।পিতা তার সামনে দাড়ালে তার দিকে মুখ তুলে তাকিয়ে কাকুতিময় আবদার করল।
-আব্বু এটাকে বাসায় নিয়ে যাই…।
-ঠিক আছে।চলো…।

ঋণী

Posted: November 22, 2015 in Uncategorized

তিন হাটুতে ভর করে চলাচল করতে হয় সমাজের অচেনা ব্যাক্তি নাছির সাহেবকেজীবনে চলার পথে অনেক সংগ্রাম করতে হয়েছে জীবন সংসার কিংবা রাষ্ট্রীয় কোন দেশপ্রেমের সংগ্রামেসে আজ অসহায় নিঃস্ব, যে ছিল একদিন বীরের দর্পের দাপুটে সে আজ কাঙ্গাল ভালবাসায়,স্নেহে,মমতায়নাছির সাহেব গভীর অন্ধকারে ঝড়া জীর্ণ একটি আশ্রীত বিল্ডিংয়ে দিন রাত অতিবাহিত করছেন কখন বিধাতার ডাক পরবে বলেতারই নাতি আজিম উদ্দিন অক্ষ্যাত লেখক আগামী বই মেলায় সে একটি বই বের করবে বলে কিছু লেখালেখি করছেন ছাড়াও আজিম সাহেব মানব কল্যায়নমূলক কাজে নিজেকে সব সময় ব্যাস্ত রাখেনআজিম সাহেবে বাবা সমাজের বিশিষ্ট শিল্পপতি এবং রাজনৈতিক কেন্দ্রীয় নেতাআজিম সাহেব ভাষা আন্দোলনের উপর লিখবে বলে সে ঘুরে বেড়িয়েছে দেশের বিভিন্ন জেলায় জেলায় সংগ্রহ করেছেন জানা অজানা অনেক তথ্যাদি আরো কিছু তথ্যাদির জন্য অপেক্ষায় আছে তার বই প্রকাশের কাজতবে নিয়মিত লিখে যাচ্ছেন বিভিন্ন পত্র পত্রিকায়

আজিম সাহেব আজ কোথাও যাননি ঘরে বসেই কি যেন লেখালেখি করছেন টেবিল ল্যাম্পের ক্ষীর্ণ আলোতে।তার ছোট ছোট এক ছেলে এক মেয়ে আছে।মেয়েটি তার লউগ্গা তাকে ছাড়া মেয়েটি থাকতে পারেনা।ছোট এই মেয়েটিকে আজিম সাহেব আদর করে মা মণি বলে ডাকেন।মেয়েটি তার বাবার লেখালেখি টেবিলের সামনে এসে এক বার এটা ধরে আর এক বার ওটা ধরে বাবাকে বিভিন্ন প্রশ্ন করে।বাবা আজিম সাহেবও লেখার মাঝে হ্যানা বলে মেয়ের প্রশ্নের উত্তর দেন।এবার মেয়েটি টেবিল ল্যাপ্মের সুইচ এক বার অফ করে আবার অন করে বাবার লেখায় মনযোগ নষ্ট হয়

মা মণি একি করছ?তুমি দেখছ না আমি লিখছি

আব্বু সুইচ টিপ দিলে বাত্তি জ্বলে আবার নিভে কেনো?

আজিম সাহেব কোন উত্তর দেয়না। মেয়েটি আবারও একই প্রশ্ন করে।বিরক্ত হয়ে আজিম সাহেব মেয়ের প্রশ্নের উত্তর দেন

বিদুৎতের কারনে.. মা

বিদুৎ কি আব্বু?

তুমি এদিকে আসো আমি বলছি

মেয়েকে নিজের হাতের কাছে নিয়ে আবার লেখায় মনযোগ দেন।নাছড় বান্দা শিশু মেয়ে আবার আর একটি প্রশ্ন করে

আব্বু তুমি কি লিখছ

গল্প

গল্প কি আব্বু?

আজিম সাহেব এবার লেখায় মনযোগ হারিয়ে ফেলে সে তার মেয়ের কথার উত্তর দেন

গল্প হলো মানুষের জীবন কাহিনী

জীবন কি আব্বু?

আজিম সাহেব এবার মেয়ের প্রশ্নের উত্তর দিতে নারাজ কিন্তু মেয়ে তার প্রশ্ন চালিয়েই যাচ্ছে

আব্বু বলো না,জীবন কি..বলো না….বলোনা আব্বুবলো?

জীবন হচ্ছে আমাদের,এই আমি তুমি বেচে থাকা

মেয়ের এবার আজিম সাহেবের লেখার নোট বইয়ের দিয়ে নজর পড়ে এবং প্রশ্ন করতে থাকে

আব্বু তুমি কি লিখছ?

ভাষার জন্য যারা জীবন দিয়েছে,যারা সংগ্রাম করেছে তাদের সম্পর্কে লিখছি

বড় আব্বা কই?ফুপি বলেছে বড় আব্বু নাকি যুদ্ধ করেছে…..আচ্ছা যুদ্ধ কি আব্বু

আজিম সাহেব এবার নড়ে চড়ে বসেন,সত্যিই তো দাদু ভাইকেতো শুনেছি অনেকে লড়াকু বলে ডাকত।কিন্তু সে এখন কোথায়?আব্বুর কাছে শুনেছি স্বাধীনতা যুদ্ধের পর পর সে নাকি দেশান্তর হয়েছেন,কিন্তু কোথায় গেছেন দাদু ভাই?আজিম সাহেব উপরের তাক হতে পুরনো একটি ব্রিফকেটস নামিয়ে আনেন।পুরনো ব্রিফকেটস জং পরে গেছে ধুলাবালি আর তাপে ব্রিফকেটসের নিজস্ব রং জ্বলে ফ্যাকাশে হয়ে গেছে ব্রিফকেটস খুলে আজিম সাহেব তার দাদার ছবিটি বের করেন।বেশ স্বাস্হ্যবান এবং লম্বা ফর্সা তার দাদা।ছবিতেই অনুমান করা যায় বয়সকালে সে কতটা পালোয়ান ছিল।ছবিটা দেখে মেয়ে আবার প্রশ্ন করে

এই কি আমার বড় আব্বু?

হ্যাঅজানা এক ব্যাথায় আজিম সাহেবের চোখের পানি টল টল করছে যে কোন সময় তা গড়িয়ে পড়তে পারে মাটিতে

বড় আব্বু কি যুদ্ধ করেছিল?

হ্যা,বড় আব্বু অনেক বড় যোদ্ধা ছিলেন

বড় আব্বু এখন কোথায়?

জানিনা….বলে চোখের পানি মেয়ের হাতের উপর পড়ে

আব্বু তুমি কাদছঁ কেনো?

এমনিই

বারে..;;শুধু শুধু কেউ বুঝি কাদেঁ!

বাবার চোখের পানি দেখে মেয়ের মনও খারাপ হয়ে যায় সে বাবাকে বুঝাবার চেষ্টা করে

ঠিক আছে আব্বু…. আমি আর বড় আব্বুর কথা জিজ্ঞাস করবনা

আমিজ সাহেব মেয়েকে টান দিয়ে বুকে নিয়ে চোখের বান ছেড়ে দেন।চোখের পানি ঝড় ঝড় করে ঝড়ছে আর আপন মনে বলে যাচ্ছে অজানা ব্যাথা জানবার ব্যার্থতাকে

কি করে তোকে বলব দাদু এখন কোথায়,জীবিত আছে না মরে গেছে আমি প্রশ্নের উত্তর অনেক খুজারঁ চেষ্টা করেও ব্যার্থ হয়েছি….ব্যার্থ হয়েছিরে মা ব্যার্থ…..

আজিম সাহেব আজ খুব সকালেই ঘুম থেকে বেরিয়ে যান তার লেখক কিছু বন্ধুদের সাথে দেখা করতে।বন্ধুরা গতকাল বলেছিল কোথায় যেন একজন দেশপ্রেমিক মুক্তি যোদ্ধা আছে তার সাথে দেখা করে আরো কিছু তথ্য জেনে নেবেন লেখকরা।সেই উদ্দ্যেই আজিম সাহেব ঘর থেকে বের হয়ে বন্ধুদের মিলিত গঠিতলেখক বন্ধু ক্লাবেযান।আজিম সাহেব ক্লাবে ঢুকার সাথে সাথে বন্ধুরা কি যেন বলাবলি করছিল তা হঠাৎ থেমে যায়

কি ব্যাপার সবাই ভাবে হঠৎ চুপসে গেলে?ঘটনা কি?

এক লেখক বন্ধু আজকের পত্রিকাটি তার সামনে ছুড়ে দেয়।আজিম সাহেব পত্রিকার পাতায় চোখঁ রাখতেই অবাক হন।একি! তো আব্বুর ছবি!দূর্ণিনিতীর দায়ে ফেসে গেল বিশিষ্ট শিল্পপতি রাজনৈতিকবিদ আকমল হোসেনবড় বড় হেড লাইনে বের হয়েছে তার পিতার কুকৃর্তির কথা।সহকর্মীর অনেকেই অনেক মন্দ বলছেন অনেকে আবার আজিম সাহেবকে কিছু মনে না করতে অনুরোধ করছেন।আজিম সাহেব সাথীদের নিয়ে চলে গেলেন তাদের নিদিষ্ট প্লানিংয়ের কাজে

সরকারী কোন সংস্হা নয় বেসরকারী ভাবে সমাজের কয়েকজন বিবেবান ব্যাক্তি মিলে বৃদ্ধাশ্রমের মত একটি সংস্হা তৈরী করেছেন সেখানে এক বৃদ্ধ বয়স প্রায় আশি/পচাশিরঁ উপরে।লোক মুখে জানা যায় এই বৃদ্ধ লোকটি ভাষা আনন্দোলন,’৬৯ গণঅভূৎখান,’৭১ স্বাধীনতা যুদ্ধের সম্মূখ ভাগের আন্দোলনকারী ছিলেন।তার কাছ থেকে কিছু তথ্য জানতেই আজিম সাহেব বন্ধুদের সাথে সেখানে গেলেন।সেখানে ছোট্র এক কামড়ায় চামড়া ঝুলে যাওয়া চোখে কালো ফ্রেমের চশমা দেয়া এলোথেলো চুল আর নাক মূখ ভর্তি গোফ দাড়িওলা দুজন পিচ্চির সাথে বসে বসে লুডু খেলায় মগ্ন তাদের দেখে সে খেলায় আরো বেশী মনযোগ দেন।বরাবর সে কোট টাই পড়া লোক দেখলে তেমন কোন কথা বলে না সাধারনতঃ সে এড়িয়ে যায় এবারো তাই করল সে।আজিম সাহেবের এক বন্ধু তাকে সালাম জানান কিন্তু সে না শুনার ভান করে পিচ্চিদের সাথে লুডু খেলায় মগ্ন

আস সাআলাইমু আলাইকুম

কোন উত্তর নেই আবার বললেন তারপরও কোন উত্তর নেই।এবার আজিম সাহেব তার নাক বরাবর করে মাটিতেই বসে পড়লেন হঠাৎ বৃদ্ধ চেচিয়ে উঠেন

কি করছেন মাটিতে কেন? তোরা কই সাহেবরে বইতে দে

এক লোক এসে তাদের বসতে দিল।বৃদ্ধ আবার খেলায় মগ্ন

দাদু আমরা আপনার কাছে এসেছিলাম কিছু জানতে আপনি কি আমাদের সাথে একটু কথা বলবেন?

বৃদ্ধ হা না কিছুই বলছে না।আজিম সাহেব আবারও বললেন

দাদু শুনেছি,আপনি নাকি ভাষা আনন্দোলন করেছিলেন

ভূল শুনেছ আমি কোন আন্দোলন ফান্দোলন করি নাই….. কথার লাইগ্গা কথা কইছি।আর সব জাইন্না কি লাভ?

দাদুচেয়ে দেখুনতোচেয়ে দেখুনতো আমার চোখেঁ আপনার প্রতিচ্ছবি দেখা যায় কি না?

দাদু এবার আজিম সাহেবের দিকে তাকায়।কিছুক্ষন নিশ্চুপ কেবল তাকিয়ে থাকে।পাশে আজিম সাহেবের অন্য একজন ক্যামেরায় দাদুর ছবি বন্দী করে।দাদুর স্নহের সকল মায়া যেন আজিম সাহেবের চোখেঁ জলছবি হয়ে ধরা দিল

দাদু.. কিছু না বলুন অন্ততঃ আপনার জম্ম স্হানটা কোথায় তা যদি বলতেন?

দাদুর কাছ থেকে ঠিকানা তার নাম এবং তার বড় ছেলের নাম,বড় ছেলে কোথায় থাকেন কি করেন সব জেনে আজিম সাহেব সব নোট করেন।কিন্তু অবাক হন দাদুর বড় ছেলের নাম শুনে।দাদুর বড় ছেলের নাম এবং দাদুর নাম ঠিক আজিম সাহেবের বাবা এবং দাদার নামের অবিকল,ঠিকানাও মিলে যাচ্ছে……তাহলে এই বৃদ্ধটিই কি তার হারিয়ে যাওয়া দাদু ভাই?কেমন যেন প্যাচ লেগে গেল কাহিনীতে সে ঠিক মিলাতে পারছে না সত্যি কি?

জানলাম আপনার জম্ম স্হানের কথা,এবার একটু বলবেন আপনার বীরত্ত্বের কিছু কাহিনী?

বীরত্ত্ব!বীর..তাই যদি তোমরা ভাবতে তাহলে আজ আমাদের মত বীরেরা না খেয়ে অনাদরে প্রান দিত না।বাঙ্গালী বীরত্ত্বের প্রথম স্বাক্ষী ভাষা আন্দোলন।সেই ভাষা আন্দোলনকারীদের তোমরা কি রাষ্ট্রীয়ভাবে স্বীকৃতি দিতে পেরেছ?পারো নি।প্রকৃত শহীদের কিংবা জীবিত ভাষা আন্দোলনকারীদের নামের লিষ্টও তোমরা রাষ্ট্রীয়ভাবে পূর্ণাঙ্গ করতে পারোনি তোমরা।খোজঁ রাখনি যারা নিজের প্রান দিয়ে মায়ের ভাষাকে রক্ষা করেছিল তাদের। তাহলে আর কি জানতে চাও বলো,কি বলব তোমাদের একটি অকৃজ্ঞ জাতির জন্য?

আজিম সাহেব সেদিন আর কোন কথা বলতে পারেননি।তরুন প্রজম্ম হিসাবে নিজেকে নিজের বিবেককে ধিক্কা দিয়ে গেল।আজিম সাহেব বাসায় চলে এলেন বৃদ্ধার তোলা ছবিগুলো প্রিন্ট দিয়ে নিতে ভূল করেনি।সংগ্রহে রাখা তার দাদুর ছবির সাথে সদ্য তোলা বৃদ্ধার ছবি মিলাতে ব্যাস্ত। তার ছবিতে দাড়ি গোফ একেঁ কম্পিউটারে তা ম্যাচিংয়ের চেষ্টা করেন।এক সময় সে নিজেকে সেটিসফাই করেন যে, এই সেই তার বাবার মূখে শুনা হারিয়ে যাওয়া দাদু ভাইটি।নিজেকে নাতী হিসাবে পরিচয় দিয়ে দাদুকে ঘরে আনতে আর যে দেরী সইছেঁ না আজিম সাহেবের কিন্তু ততক্ষনে অনেক রাত হয়ে গেছে তাই এখন নতুন দিনের নতুন সূর্য্যের অপেক্ষায়

পরদিন ভোরে উঠেই আজিম সাহেব ফিরে পাওয়া দাদুকে আনতে তার ছোট মেয়েকে সঙ্গে নিয়ে বের হয়ে গেলেন।দাদুর আশ্রীত বাড়ীর কাছাকাছি গিয়ে অবাক হন অনেক লোকজন দেখে, কারো কারো মাথায় টুপি,বাহিরে পেতে দেয়া টেয়ারগুলোতে লোকের বসা এবং পবিত্র কোরআনের তেলওয়াতের সূর কানে আসছেভেবেছেন অন্য কেউ হয়তো ইন্তেকাল করেছেন।ধীরে ধীরে আরো কাছাকাছি লাশের খাটের সামনে দাড়িয়ে লোকজনকে যখন জিজ্ঞাস করে জানতে পারেন এটা ভাষা সৈনিক নাছির সাহেবের লাশ তখন আজিম সাহেব কান্নায় ভেঙ্গে পড়েন লাশের খাটের উপর।এলাকার স্হানীয় মাতব্বরদের কাছে আজিম সাহেব লাশের পরিচয় খুলে বলে লাশটিকে নিজ বাড়ীতে নিয়ে যাবার অনুরোধ করেন।মাতাব্বররাও তাই চাইছিল যদি তার কোন আত্ত্বীয় স্বজন থাকে তাহলে তাদের বুঝিয়ে দিবেন

আজিম সাহেব খাটে করেই ভাষা সৈনিককে কাধে তুলে নেন সাথে ছোট মেয়ে এবং আরো বেশ কিছু ভক্ত এবং এলাকার জনগণ আজিম সাহেবের সাথে হাটছেন জিকিরে সহিত।দেশপ্রেমিকের এমন করুণ মৃত্যু যেন আমাদের বিবেকের দরজাকে নাড়া দিয়ে গেল

আজিম সাহেবের বিশাল অট্ট্রেলিকার খোলা উঠোনে বীর ভাষা সৈনিকের লাশের খাটটি রাখেন। আজিম সাহেব অবাক হয়ে তাকিয়ে থাকেন সামনের দিকে। আজিম সাহেবের বাবা আকমল হোসেনকে পুলিশ হাতকড়া পড়িয়ে নিয়ে যাচ্ছেন।লাশের কাছাকাছি এসে আকমল সাহেব মুখ খোলা বাবার নিথর দেহটি দেখে কান্নায় হাটু গেড়ে লাশের খাটের পাশে বসে পড়েন……শুধু অনুসূচনায় একটি কথাই বলে

বাবা….. ক্ষমা করে দিও,আমি তোমার অবাধ্য সন্তান…….বলেছিলে দেশপ্রেমিকের মরণ নেই আমারা যারা টাকার লোভে দেশপ্রেম ভূলে মাতৃভূমির ক্ষতি করি তাদের করুণ পরিণতি একদিন হবে….সেই যে ঘর ছাড়লে আর এলে না আর এলে যখন আমার যাবার সময় হল তখন……ক্ষমা করো পিতা ক্ষমা করো……।।।

ভাবে অযত্নে অবহেলায় এবং রাষ্ট্রীয় গাফলতি সর্বোপরি যারা দেশের প্রকৃত রাজনিতীবিদ ছিল তাদের দায়ীত্ত্বজ্ঞান হীনতায় আমাদের শ্রদ্ধাভাজন ভবিষৎ প্রজম্মের আদর্শ দেশের বীর সন্তানরা যারা ছিল তারা এভাবে নিরবে পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে আমাদের ঋণী করে চলে যায়। আমরা তথা নতুন প্রজম্মরা,কার কাছ থেকে জানব দেশের গর্বিত প্রতিটি প্রকৃত ইতিহাস?আসছে নতুন প্রজম্মকে কি ভাবে বলবো এরা তোমাদের আদর্শ যেখানে আমরা নিজেরাই সন্দেহের ভিতরে বসবাস করছি।ভাষা আন্দোলনে নারীদেরও ভূমিকা ছিল কিন্তু আজও শুনিনি জুরে সূরে তেমন কোন নারী ভাষা সৈনিকের নাম।কিন্তু কেনো?

***এটা কেবলি গল্প কেউ সত্য ভেবে ভূল করবেন না **

(বিঃদ্রঃ)সত্য এখানে….

চলে গেলেন ভাষা সৈনিকসাঈদ উদ্দিন

কিছু দিন আগে পৃথিবীর মায়া ত্যাগ করে চলে যান ভাষা সৈনিক সাঈদ উদ্দিন আমরা জনই বা খবর রেখেছি।এ ভাবে নীরবে চলে গেছেন,চলে যান,চলে যাবেন আমাদের গর্বিত সৈনিকরা হয়তো এভাবেই খোজঁ না নেয়ায় মুছে যাবে অনেকের নাম

প্রিয় সোনেলা ব্লগে সামাজিক অসংগতি নিয়ে আমার ধারাবাহিক গল্প
“যৌতুকের বলি”

 

 

 

যৌতুকের বলি ১২তম.

সদা সত্য

Posted: June 25, 2015 in Uncategorized

কে কাদেঁ
মনের ভেতরে লোকায়িত ঝেড়ে ফেলে
কেউ কাদায়ঁ
মনের ভেতরে কু-মতলব ঝমিয়ে
অন্যকে শাসায়।

কেউ ভালবাসে
মনের সকল আশার রূপকে পরিপূর্ণতা দিতে
কেউ ভালবাসায়
কাম লালসার মাঝে প্রকৃত ভালবাসাকে ঠকাতে।

কেউ নেশা করে
অন্তরে লোকায়িত কষ্টকে ভূলে থাকতে
কেউ নেশা করায়
সমাজকে কলুষিত করতে।

কেউ ধর্মের রীতিতে মাথা নত করে বার বার
ভবেন না কভূ পৃথিবীর নিকট দায় বদ্ধ তার
কেউ ধর্ম  কোন ধার ধারেনা,
ভাবেন
মৃত্যুর পর মানুষের অস্তিত্ত কোথায়।

কম বেশি ভুল সবারই হয়। কিন্তু সেই ভুল যখন এতটাই হয়ে পরে যে সেটা ইতিহাসের পাতায় স্থান করে নেয় তখন সেটা নিয়ে আলোচনা হবে এমনটাই স্বাভাবিক। আসুন দেখি ইতিহাসের সেরা কিছু ভুল এবং তার কারন জানি

bashor_17_6490363875529ee68bf1955.15162820_xlarge২২) ১১৭ বছর ধরে নির্মান করা হয় ইতালির বিখ্যাত পিসার হেলানো মিনার। আর সেটা হেলতে সময় নেয় মাত্র ১০ বছর। আজব ব্যাপার হল মাত্র ২০০৮ সালে এসে প্রায় শ খানেক ইঞ্জিনিয়ার এর সমস্টিগত প্রচেস্টায় এটার হেলানো বন্ধ হয় এবং ইঞ্জিনিয়াররা ঘোষনা দেন আগামি ২০০ বছরে এটি আর হেলবে না। প্রধানত নির্মানের সময় বেইজের দুর্বলতার কারনে এটি হেলা শুরু করে। পরবর্তিতে বেইজে প্রচুর কাজ করা সত্বেও এটি হেলতেই থাকে।

bashor_17_156575860355098d71774537.07276932_xlarge২১) টাই টানিকে প্রচুর মানুষ মারা যাওয়ার প্রধান করা হিসাবে ধরা হয় এটিতে যথেস্ট পরিমানে লাইফ বোট ছিল না। কিন্তু পরবর্তিতে জানা যায় জাহাজ কর্তৃ পক্ষ ইচ্ছা করেই যথেস্ট লাইফ বোট রাখেইনি কারন তাদের ধারনা ছিল এটি “unsinkable” বা কখনোই ডুববে না।

bashor_17_203000122955099636e13120.73826517_xlarge২০) নাসা ১৯৯৯ সালে Mars Climate Orbiter নামক একটা মহাকাশ যান খুব হাস্যাকর একটা কারনে হারিয়ে ফেলে যেটা মঙ্গল গ্রহকে প্রদক্ষিন করছিল। কারন ছিল লকহিড মার্টিন যারা মহাকাশ যানটিকে তৈরি করেছিল তাদের সফ্টওয়ারটি ছিল আমেরিকান ইউনিট সিস্টেমে। আর নাসা র কম্পিউটারগুলা চলতেছিল ব্রিটিশ উনিট সিস্টেমে। ফলে দুইটার ক্যালকুলেশনে ব্যাপক গোলমাল লেগে যায় আর হাজার কোটি টাকার আস্ত একটা মহাকাশ জান মঙ্গলগ্রহের মাটিতে আছরে পরে।

bashor_17_841937262550997250adc01.95927397_xlarge১৯) ফরাসি সম্রাট নেপোলিয়ন ভেবেছিলেন তিনি শীত কালে রাশিয়া আক্রমন করে পুরো রাশিয়া দখল করে নিতে পারবেন। পরবর্তিতে তিনি স্বিকার করেছিলেন এটি ছিল তার জীবনের সর্বশ্রেষ্ঠ ভুল। অর্ধেক সৈন্য প্রচন্ড ঠান্ডয় মারা যায় আর বাকি অর্ধেক খাবারে অভাবে অভুক্ত অবস্থায় প্রচন্ড খারাপ অবস্থায় ফ্রান্সে ফিরে আসে।

১৮) হে হে হে হে …………. আমাদের হিটলার বাবাজি মনে করছিলেন তিনি নেপোলিয়ন এর থেকে আরো একটু বেশি ভালো করবেন। তাই তিনিও শীত কালে রাশিয়া আক্রমন করে বসেন। যে যাই বলুক জার্মানরা পুরো বিশ্ব যুদ্ধে হেরে যাওয়ার এটাই প্রধান কারন। রাশিয়ার সেই দুধর্ষ শীত।

১৭) ১২১৯ সালে চেঙ্গিস খান তৎকালি পারস্য(ইরান) শাষকের কাছে তিনজন রাস্ট্রদুত পাঠিয়েছিলেন শান্তি আলোচনার জন্য যাদের একজন চাইনিজ এবং দুইজন মুসলিম ছিলেন। পারসিয়ানরা তাদের মাথা কেটে শুধু দেহটা ঘোরার পিঠে বেধে চেঙ্গিস খানের কাছে ফেসত পাঠায়। চেঙ্গিস খান পারস্যের এক কোনা দিয়ে যুদ্ধ আর ধংস্ব শুরু করেন ঠিক আরেক কোনয়া গিয়ে ক্ষান্ত দেন। পুরো পারস্যতে কয়েক কোটি মানুষ নিহত হয় শুধু মাত্র এই সামান্য ভুলটার জন্য। গোয়ার্তুমিও বলা চলে।

১৬) ডাচরা মানে কিংডম অফ নেদারল্যান্ড ব্রিটিশদের প্রায় ১০০ বছর আগে অস্ট্রেলিয়া আবিস্কার করেছিল। কিন্তু দুর্ভাগ্যের বিষয় তাদের উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা এটাকে একটা ব্যাবহার অযোগ্য মরুভুমি বলে ফেলে গিয়েছিল। অথছ ব্রিটিশরা আজও অস্ট্রেলিয়ার কর্তা হিসাবে চলতেছে। আর আমার ধারনা অর্থনৈতিক দিক থেকে অস্ট্রেলিয়া দিয়ে সবচেয়ে বেশি লাভবান হয়েছে ব্রিটিশরা।

১৫) রাশিয়া তার আলাস্কা নামক অঞ্চলটা আমেরিকার কাছে মাত্র দুই সেন্ট আর এক একর জমির বিনিময়ে বিক্রি করে দিয়েছিল কারন তাদের ধারনা ছিল এত বরফের মধ্যে আসলে কিছুই নেই আর এটা একেবারেই ইউজলেস হবে। পরবর্তিতে এই বরফঢাকা অঞ্চলটিই এখন আমেরিকার বিশাল সম্পদে পরিনত হয়েছে।

১৪) ইনকা সম্রাট Atahualpa স্প্যানিশ কর্নেল Francisco Pizarro এর সাথে দেখা করতে সম্মত হন যখন তার ৮০ হাজার সৈন্য Francisco Pizarro এর মাত্র ২০০ ঘোর সওয়ার সৈন্যের সাথে পরাজিত হয়। ঘটনাটা এতটাই মারাত্মক ছিল যে পরবর্তিতে পুরো ইনকা সম্রাজ্যের পতন ঘটে এবং তারা একেবারে পৃথিবীর বুক থেকে পুরোপুরি বিলিন হয়ে যায়। অনেকেই বলে থাকেন Francisco Pizarro ইনকাদের উপর মারাত্মক গনহত্যা চালিয়েছিলেন।

১৩) একটা সামান্য কাঠের ঘোরা তাদের শহের ঢুকানোর ভুলের মাসুল হিসবে পুরো ট্রয় নগরি ধংস্ব প্রাপ্ত হয়। মারাত্মক এই ভুলের গল্পটা সবারই জানা আছে। ঘোরার ভিতরে থাকা গ্রিক সৈন্যরা পরবর্তিতে রাতের আধারে ট্রয় নগরির প্রধান গেট খুলে দেন এবং পুরো ট্রয় ধংস্ব প্রাপ্ত করে গনহত্যা চালায় গ্রিকরা।

১২) ১৯৩৬ সালে জার্মানরা তৎকালিন পৃথিবীর সর্ববৃহৎ এয়ার শীপ নির্মান করে যার নাম ছিল হাইডেনবার্গ(LZ 129 Hindenburg)। কোন শালার বুদ্ধিতে তারা সেটার পুরো বেলুনটা হাইড্রোজেন গ্যাস দিয়া ভর্তি করেছিল। ফলে ঠিক তার পরের বছর ১৯৩৭ সালে সামান্য একটা আগুন পুরো একটা ভয়ানক বিস্ফোরনের সৃস্টি করে। ভুল কারে বলে।

১১) ১৪৫৩ খ্রিস্টাব্দে রোমানদের ১৫০০ বছর পুরো সম্রাজ্য বাইজাইন্টাইন এর রাজধানি কন্সটান্টিপোল(বর্তমানে তুরস্কের ইস্তাম্বুল) দখল কর নেন মাত্র ২১ বছর বয়সি অটোমান সুলতাম দ্বিতিয় মেহমেদ। কারন কেউ একজন শহরের বাউন্ডরি ওয়ালের একটা ছোট দরজা ভুলে খুলে রেখে গেছিল। আজকের তুরস্কের রাজধানি ইস্তাম্বুল হওয়ার পিছনে এই ছোট ভুলটাই ছিল কারন।

১০) ১৪ শতকে চাইনিজ সম্রাজ্য তার সমস্ত নেভি ইউনিট গুলো বন্ধকরে দেয় এবং নিজেদেরকে একেবারে একধরে করে ফেলার সিদ্ধান্ত নেয়। অদ্ভুদ এই সিদ্ধান্তের ফলে তাদের পুরো উপকুল সম্পুর্নরুপে অরক্ষিত হয়ে পরে এবং পরবর্তিতে বেশকেয়কটি যুদ্ধে তারা অনেক অনেক ক্ষতিগ্রস্থ হয়।

৯) ১৯১৪ সালে অস্ট্রিয়ার তৎকালিন শাষক Archduke Franz Ferdinand এর ড্রাইভার ভুল করে একটা রং টার্ন নিয়ে ফেলে। ফলে গারিটি সরাসরি তার হত্যাকারি সার্বিয়ান Gavrilo Princip এর সামনে গিয়ে পরে এবং খুব সহজেই সে Archduke Franz Ferdinand কে হত্যা করে। Archduke Franz Ferdinand হাঙ্গেরির প্রিন্স ছিলেন এবং তিনি পরবর্তি রাজা হতেন। পরবর্তিতে হাঙ্গেরি এবং তার মিত্ররা সার্বিয়ার বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষনা করলে ইংল্যান্ড সহ সার্বিয়ার বাকি সহোযোগিরা উল্টা যুুদ্ধ ঘোষনা করে বসে। ফলে প্রথম বিশ্বযুদ্ধ শুরু হয়। দুই দুইটা মারাত্মক বিশ্বযুদ্ধ এরানো সম্ভব হত যদি সেইদিন ড্রাইভার এই সামান্য ভুলটা না করতো।

৮) জাপানিস রা দ্বিতিয়া বিশ্বযুদ্ধে আমেরিকার নোঘাটি পার্ল হারবার এর আক্রমন করে এমন সময় যখন তাদের একটা এয়ারক্রাফট ক্যারিয়ারও সেকানে ডক করা ছিল না। অথচ সাধারনত সেখানেই বেশিরভাগ সময়ই জাহজ গুলো সেখানে থাকার কথা থাকে। যদি সে সময় এই জাহজাগুলো ধংস করতে পারত যুদ্ধে আমেরিকার এত শক্ত উপস্থিতি থাকতো না। আর এর জন্যই অনেকে বলে থাকেন এই আক্রমনের পিছনে আমেরিকার হাত ছিল।

৭) রাশিয়ার চেরোনেভিল পারমানবিক বিদ্যুৎ কেন্দ্রের দুর্ঘটনার পিছনে দায়ি করা হয় খারাপ কন্সট্রাকশন। ধারনা করা হয় যেই ইঞ্জিনিয়ার এই পারমানবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র টির কন্সট্রাকশন সুপারভাইজ করার দায়িত্বে ছিলেন তিনি বেশি কিছু স্থানে স্ট্রাকচারাল ভুল করেছিলেন। যেটা পরবর্তিতে মারাত্মক এক বিস্ফোরন আর রেডিয়শন সৃস্টি করে। প্রায় লক্ষাধিক মানুষ নিহত এবং প্রচুর মানুষ পঙ্গু হয়ে যায়। পুরো একটা আস্ত শহর পরিত্যাক্ত হয়ে পরে।

৬) সেই ১২ জন বই পাবলিশার বা প্রকাশক যারা জে.কে রাওলিংকে ফিরিয়ে দিয়েছিলেন এই বলে যে হ্যারি পটার নামক এই ফালতু বই কেউ কিনবে না। পরবর্তিতে Bloomsbury Publishing কম্পানি প্রথম বইটি প্রকাশ করতে রাজি হয় যাতে লেখিকাকে তারা মাত্র ২৫০০ পাউন্ড পারিশ্রমিক দিয়েছিল। মজার বিষয় হচ্ছে পরবর্তি বইয়ের জন্য তারা তাকে দিয়েছিল ১ লক্ষ পাউন্ড। আর তার পরে তো ইতিহাস।

৫) আলেক্সান্ডার দ্যা গ্রেট পু্রো পৃথিবী দখল করেছিলেন। তার বিশাল এই সম্রাজ্য শাষন করার জন্য তিনি বেশি দিন বেচে থাকতে পারেন নি। মাত্র ৩২ বছর বয়সে তিনি মৃত্যু বরন করেন কিন্তু মারা যাওয়ার আগে তিনি তার কোন উত্তরসুরির নাম বলে যাননি। যেটি পরবর্তিতে সরাসরি তার এই বিশাল সম্রাজ্যের পতন ত্বরান্বিত করে।

৪) কার্থেজিয়ানরা রোম আক্রমনের সময় তাদের মিলিটারি জেনারেল এবং ধারনা করা হয় সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ জেনারেলদের একজন হ্যানিবল বার্কাকে কোন siege ইকুইপমেন্ট যেমন Ballista, Mangonel , Trebuchet (আমার Catapult পোস্টে ডিটেইলস বলা আছে) দেয়নি। যেটা ছিল ইতিহাসের চরম একটা ভুল সিদ্ধান্ত। কারন হ্যানিবল এর হাতে যদি তখন এগুলো থাকতো সে নিশ্চি ভাবে ধরে নেয়া যায় পুরো রোমান সম্রাজ্য মাটির সাথে মিশিয়ে দিতো। এবং বর্তমান পৃথিবীতে রোমানদের বদলে কার্থেজিয়ানদের স্তুতি শোনা যেত।

৩) আলেক্সান্দ্রিয়ার লাইব্রেরিতে আগুন দিয়ে ধংস্ব করাটা ছিল ইতিহাসের আরেক ভুল। কে দিয়েছে সেটা আজও জানা যায় নি কিন্তু এই আগুনের ফলে পৃথিবীর ইতিহাসের সেরা কিছু জ্ঞান-বিজ্ঞান হারিয়ে গেছে চিরতরে। ওই লাইব্রেরিটা থাকলে পৃথিবী বর্তমন অবস্থান থেকে আরও এগিয়ে থাকতো। সম্বভত আমরা আজকে অন্য কোন গ্রহে বসতি করতে পারতাম।

২) ৪৪ খ্রিস্টপুর্বে রোমান রিপাবলিকের সম্রাট জুলিয়াস সিজার বিখ্যাত perpetuo ঘোষনা করেন যেখানে তিনি পুরো রোমান রিপাবলিকের একক অধিপতি বনে যান। কিন্তু বিষয়টা রোমান সিনেট সদস্যাদের মোটেই পছন্দ হয় নাই এবং তারা ধারনা করেন সম্রাট সিনেট বন্ধ করে একক ভাবে সম্রাজ্য শাষন করার চেস্টা করছেন। তাই তারা সম্রাটকে হত্যা করেন আততায়ির মাধ্যমে গুপ্ত হত্যা করে। কিন্তু বিষয়টা যে একটা মারাত্মক ভুল ছিল তা পরবর্তিতে তারা উপলব্ধি করেন যখন পুরো রোমান সম্রাজ্যে ভায়নক অন্তর্যুদ্ধ শুরু হয় এবং বিশাল সম্রাজ্য প্রায় ধংসের দারপ্রন্তে উপনিত হয়।

১) ১৭৮৮ সালে প্রায় লক্ষাধিক অস্ট্রিয়ান সেনাবাহিনি বর্তমান রোমানিয়ার Caransebeş শহরে ঘাটি গারে অটোমান সেনাবাহিনিকে পরাস্ত্র করার জন্য। কিন্ত কোন এক অদ্ভুদ কারনে অনোমান বাহিনি আসার আগেই অস্ট্রিয়ান সেনাবাহিনি একটি অংশ তাদের বিপরিত দিকে থাকা আরেকটি অংশকে মনে করে বরে অটোমান সেনাবাহিনি। ফলশ্রুতিতে নিজেদের মধ্যে একটা ভুল যুদ্ধে প্রায় ১০ হাজার সৈন্য নিহত হয় এবং আহত হয় কমপক্ষে আরো ২৫-৩০ হাজারের মতন। আর ততক্ষনে অটোমান সেনাবাহিনি এসে দেখে যুদ্ধ শেষ পুরো শহর তারা খুব শান্তিতে পায়ে হেটে হেটে দখল করে নেয়। এত বড় মারাত্মক ভুল ইতিহাসে আর কেউ করেছে কিনা সন্দেহ আছে।

লেখটি নাম না জানা প্রিয় এক ব্লগার ভাইয়ের পোষ্ট হতে কপি করা  পোষ্টটি নজরে এলে দয়া করে আওয়াজ দিবেন।আমি কেবল  সংগ্রহে রাখার জন্য সংগ্রহ করেছি মাত্র।এর সমস্ত কৃতিত্ব আপনার।

gfccfcআকাশে প্রচুর মেঘ উটকো বাতাসে মেঘেরা কখনো ডানে কখনো বা বায়ে প্রবাহিত হচ্ছে, সুযোগ পেলেই হঠাৎ মেঘেরা বৃষ্টি হয়ে ঝরে পড়ে কর্ম চঞ্চল মানুষগুলোকে এলো মেলো দিয়ে আবারও মেঘেরা খেলা করে এলো মেলো ভাবে খোলা বাতাসে।মেঘদের মতো সূর্য্যদের মনেও বাসা বাধে এক অজানা আতংক।চৌয়াল্লিশটি বছরের মনে লালিত কাঙ্খিত স্বপ্ন পূরণে হতাশা।মা জাহানারা ইমাম যা শুরু করে গিয়েছিলেন সেই নরপশু যুদ্ধাপরাধীদের বিচার তা এই নতুন প্রজন্মদের মাঝে ফেলিত দায়ীত্ত্ব পালনে তারা সংকল্পবদ্ধ।
রাজাকার মুজাহিদ এক জন চিহ্নিত যুদ্ধাপরাধী তাকে বাচাতে উৎ পেতে আছে স্বদেশীয় কিছু নব্য রাজাকারের দল।ভাবতে অবাক লাগে তার সন্তান কি ভাবে তাকে পিতা বলে ডাকে!সে তো একজন অপরাধী তাও আবার যুদ্ধাপরাধী আজ রাজাকারদের সন্তানদের মনে যদি সামন্যতম দেশপ্রেম থাকত তবে হয়তো কেউ না কেউ পিতার বিরুদ্ধে দেশের পক্ষে কথা বলত তবে কালো রক্ত বলে কথা যা কখনোই লাল রক্তের সাথে মিশবে না।তাই নতুন প্রজন্মদের মাঝে এক ধরনের ভয় কাজ করছে, রাজাকাররা না হয় ফাসিতে ঝুললো কিন্তু তাদের সন্তানরা!তারাতো কোন একদিন তাদের অপরাধের কথা ভূলে দেশে অরাজকতা সৃষ্টি করবে পিতা বিয়োগের  প্রতিশোধ নেবার চেষ্টা করবে।তাই ভাবতে হবে রাজাকারদের সন্তানদের নিয়েও, তাদের আইনের আওতায় বন্দী করতে হবে যাতে তারা রাষ্ট্রের কোন গুরুত্ত্বপূর্ণ পদগুলিতে অধিষ্ঠিত হতে না পারে।

অনেক তাল বাহানার পর মুজাহিদীর ফাসির রায় কার্যকর বহাল রইল তাতে সাধারন জনতা একটি অস্বস্তিকর পরিস্থিতি থেকে রেহাই পেলেন।তবে তাদের মরন কামর হরতাল নামক প্রায় অকেজু হওয়া কর্মসূচীটি দিলেন।আবারও হিংস্র হরতাল।মুজাহীদের ফাসির রায় বহালে দেশে বিভিন্ন সামাজিক সংঘটনগুলো শহরে সভা সমাবেশ করে সরকারকে এক প্রকার চাপে রাখেন ।সে রকম একটি সভা সমাবেশের আয়োজন করেছিলেন সূর্য্যের বন্ধুরা।সেই সমাবেশে আসছিলেন সমর মাঝ পথে তার পথ আটকায় কিছু অচেনা টুপি ওয়ালা তরুন।
-কি রে মালাউন কই যাস?তোদের নাস্তিকদের কাছে?তবে শোন,তোদের মতো কত আকাডাগোরে আমাগো বাপ দাদারা নাকানি চোবানি দিয়েছে আমরাও তোদের ছাড়বো না তবে সময় এলেই টের পাবি,বুঝলি?
-কি যা বলছেন,আর আপনারা কারা?আমিতো আপনাদের কাউকেই চিনি না।
তাদের মাঝ খান থেকে একজন তেরে এসে একেবারে সমরের মুখের সামনে মুখ রেখে বলল।
-চিনবি,সময় হলে চিনিয়ে দেবো,একেবারে চিরকালের জন্য।আর কতকাল তোরা ক্ষমতায় থাকবি,বল এক দিনতো সিংহাসন ছাড়তেই হবে তখন দেখবো কে কাকে বাচায়।
আরেক জন টুপি খোলে মাথার জট চুল গুলো পাকাতে পাকাতে হঠাৎ সমরকে চমকে দিতে মিছেমিছি বন্দুক বের করার অভিনয় করে যা বললো তাতে সমরকে জীবন সম্পর্কে ভীষন ভাবিয়ে তুলল।
-সালারে দিমুনি এহানেই হালাইয়া,,,,,লম্প যম্প কম দিস…দেখতেইতো পারছিস তগো মুক্তমনাগো কি ভাবে একে কোরবানী করতাছি,বিশেষ ভাবে চিন্তা কর তোদেরই দল ক্ষমতায় তারপরেও আমরাই শক্তিশালী,আর যদি ক্ষমতা চলে যায় তখন কি হবেরে চান্দু….কি হবে…যা যা ভালয় ভালয় কেটে পর।

একা ছিল বলে নিজেকে অসহায় লাগছিল।যাবার সুযোগ পেয়ে সে দ্রুত চলে আসেন তাদের সমাবেশে।তাকে দেখে সূর্য্য প্রশ্ন করেন।
-কি রে এতো দেরী করলি কেনো?
সমরের চোখের জল টলটল করছে মুখে তার উত্তর দেয়ার ভাষা যেন হারিয়ে ফেলেছেন।আবারো সূর্যের প্রশ্ন…
-কি রে কথা বলছিস না কেনো?কি হয়েছে?
নিজেকে স্বাভাবিক করতে কিছুটা সময় নেন সমর তারপর কতগুলো প্রশ্ন করেন সূর্য্যকে ।
-বলতো আমাদের জীবনের নিশ্চয়তা কি?এক দিকে রাজাকার বংশধরদের হুমকি খুন অন্য দিকে প্রতিবাদ করলে পুলিশের লাঠি চার্য।শুধু কি আমাদেরই দায়ীত্ত! রাষ্ট্র কিংবা দেশের আর কারো দায়ীত্ত নেই?
-কি হয়েছে খোলে বলবিতো?
-কি আর হবে,চিঠিতে হুমকি দেয় তোকে আজ আসার পথে কাকরাইলের মোড়ে আমাকে কয়েক জন টুপিওয়ালারা শাসালো।ভাগ্যিস ওরা আমাকে মেরে হাত পা ভাঙ্গেনি,
-এই….সভা বন্ধ কর….চল দেখি…..।
jhkhkhসভা অনিবার্য কারনে সংক্ষিপ্ত হওয়ায় আমরা দুঃখিত বলে প্রায় দুই তিনশ জন কাকরাইলের অভিমুখে পায়ে হেটে শ্লোগান দিতে দিতে যাচ্ছেন।একটি রাস্তায় পুলিশের ব্যারিকেট ছিল তা ভেঙ্গে কিছু দূর যেতেই হঠাৎ পুলিশের লাঠি চার্য আর কাদানে গ্যাসে মিছিলটিও ছত্র ভঙ্গ হয়ে যায়।পুলিশের মাঝে এক অফিসার তাদের ওয়্যালেসে কথা বলছেন এক উর্ধতন কর্মকর্তার সাথে।অপর প্রান্তের কথার উত্তর দিচ্ছিলেন পুলিশ অফিসারটি।
-উপায় নেই স্যার,ওরা যে ভাবে আইন অমান্য করে রাস্তার ব্যারিকেট ভেঙ্গে যাচ্ছিল তাতে বাধ্য হয়েছি।
-তুমি কি জানো ওরা ক্ষমতাশালীদের লোক,ওরা রাজাকারের ফাসির দাবীতে আন্দোলন করছে।
-জানি স্যার,
-তবে কেনো এমন এ্যাকসানে গেলে?তোমাদের জন্য আমাকে অনেক কথা শুনতে হবে জবাব দিহীতা করতে হবে চার আনার এমপি মন্ত্রীদের কাছে ওভার…বলে কথা বন্ধ করলেন।
এরই মাঝে এক সহকারী অফিস্যারের ওয়্যারলেস আসে।
-হেলো….স্যার মিছিলটি আবারো সক্রিয় হচ্ছে।
-তাহলে এবার জল কামান চালাও….. সাথে রাবার বুলেট।ওভার….।

xgxgxমুহুর্তে ফের দাড়ানো মিছিলটির উপর পুলিশের আরো এক বার হামলা হলো।ঝর্নার ন্যায় অনবরত রাবার বুলেটের পাশাপাশি আসল বুলেটও ছাড়তে ভূল করেননি কোন এক রাজাকার সাপোর্টের পুলিশ।মুহুর্তে মাটিতে লুটিয়ে পড়ে ছটফট করছে তর তাজা একটি প্রান।স্তব্ধ হয়ে যায় জন চঞ্চল ময় শহর।সমর অভি সূর্য্য কে কোথায় কেউ কাউকে দেখছেন না হয়তো যে যেদিকে পেরেছেন জান বাচা ফরজ করেছেন।পরিস্থিতি কিছুটা শান্ত হলে সূর্য্য অভি একত্রিত হলেও সমর আর স্বর্নাকে দেখতে পারছেন না কোথাও।অভি ওদের দু’জনের মোবাইলে রিং করে স্বর্নাকে মোবাইলে পেলেও সমরকে পেলেন না।
-হ্যালো,স্বর্না তুমি এখন কোথায়।
উত্তর শুনার আগেই লাইনটি কেটে যায়।আবারও রিং ঢুকানোর চেষ্টা স্বর্নার মোবাইলে….মোবাইল বিজি দেখাচ্ছে।অভির মনে হচ্ছিল রাগে মোবাইলটারে ভেঙ্গে ফেলেন।কিন্তু উপায় কি এই একটি মাধ্যমই বিপদে দ্রুত স্বজনদের খোজ নেয়া যায়।সে আবারও রিং দেন স্বর্নাকে।রিংটি রিসিভ হওয়াতে স্বস্তিতে নিঃস্বাস ফেলেন অভি।
-হ্যালো,হ্যা আমি অভি,,,তুমি কোথায়?সমরকে..তো ফোনে পাচ্ছিনা।
কেদে ফেলেন স্বর্না,কান্নার স্রোতের তীব্রতায় ঠিক মত কথা বলতে পারছেন না সে।
-আমি…আমি হাসপাতালে…সমর অপারেসন রুমে।রাবার বুলেটে তার বুক পিঠ ঝাঝরা হয়ে গেছে।
ফোনে কথার মাঝে সূর্য্য অভির কাছ হতে বার বার জানার চেষ্টা করছে কি হয়েছে,সমর স্বর্নারা এখন কোথায় কেমন আছেন।অভি কোন কথা না বলেই কামন…ফলো মি হাসপাতাল যেতে হবে বলে দ্রুত একটি সি এন জি নিয়ে প্রস্থান নেন।

চলবে,

 (y) কোন হ-য-ব-র-ল নয় চাই সামাজিক ও রাষ্টীয় ভাবে সমূলে রাজাকারদের বয়কট  এবং সংবাদ মাধ্যমগুলোকে  রাজাকার কে রাজাকার বলাতে বাধ্য করতে হবে।

প্রজন্মের ঋণ শোধ ২৩ তম পর্ব পড়ুন
ছবি:সংগৃহীত অনলাইন।

মুজাহীদের অপরাধ সম্পকিত একটি ভিডিও